কচি বউ চোদার মজা


কচি বউ চোদার মজ   



“উমমমমম,… অউমমম আহ্হঃ, হাহা, এই বয়সে এমন সুন্দরী কচি বউ

পাওয়া তো চাট্টিখানি কথা না!প্চ্মহ… হমমমমমম “
-“উঃ! উমমম আমি আপনার কচি বউ নাকি? উহ্ম্ম্ম্হ …আহ্!”
-“তাহলে তুমি কি বল তো সোনামণি? উমমমমম?প্চ্ম্ … ঔম্!”
-“আহ্হঃ ইশশশ … জানিনা”
-” আমায় ওই নামে ডাকবেন না!”
-“কচি বউ! হাহা উমমমমম..”
-“ধ্যাত্!” bangla choti kochi bou bangla choti kochi bou
-“কি হলো?”
-“একটু আস্তে টিপুন না!”
-“উমমম, হাহা সুন্দরী তুমি তো জানই, আমার হাত কথা শোনে না!…
-কি করবো বলো!”
-“আউচ্ লাগছে!”
-“উমমম, আমার যে ভালো লাগছে!”
-“ইশশশ!… আহঃ!”
-“মমমম……..”
“সংযুক্তা?..”
-“উম?”
-“এই বয়স্ক লোকটাকে একটু আদর তো কর!”
-“করছি তো!”
-“কই?”
-“আঃ, উমমম..”
-“তোমার ওই সুন্দর কচি তরতাজা গোলাপী-গোলাপী ঠোঁট দুটো দিয়ে চুমু খাও না আমায়..উমমম “
-“উমঃ .. প্চ্ম্..”
-“ব্যাস ওইটুকু!”
_”আরো কত চাই!”crazyfun34.wordpress.com
-“উমমম তোমরা এই আঠের বছর বয়সী মেয়েগুলি বড় অহংকারী! আমি জানি! আমার ছোট মেয়েটাও এরকম!”
-“ধ্যাত্, .. উফ্ আপনি না… প্চ্ম,…. উম্প্চ্ম .. হয়েছে?”
-“আরেকটা হামি, উম্মমম !”
-“প্ছ্হ্| নিন এবার ছাড়ুন! অঙ্ক করবো তো!”
-“হুমম উচ্চমাধ্যমিক সামনে না? ভুলেই গেছিলাম!”
-“উম্, হ্যাঁ| বুকটা ছাড়ুন! প্লিজ্!”
-“উম্… এত নরম-নরম ,.. তোমার এই টি শার্ট টার কাপড় বড় সুন্দর, কোথা থেকে কিনেছো?”
-“উফফ আমি ওইদুটো এবার কেটে ফেলবো!এদিকে দেখুন না!”
-“আচ্ছা বাবা হাত নামাচ্ছি! কই দেখি দাও!”
-“উম্|”
রত্নপুর উচ্চমাধ্যমিক বিদ্যালয়ের স্বনামধন্য প্রাক্তন teacher in charge রতিকান্ত বর্মন এই মুহূর্তে তাঁর বিশাল কক্ষে জানলার ধরে রোদে গা এলিয়ে বসে ছিলেন আরামকেদারায়| চা পর্ব শেষ হেছে বেশ কিছুক্ষণ হলো|
এখন খবরের কাগজটা সামান্য উল্টেপাল্টে দেখা| যদিও পড়ার মতো বিশেষ কিছুই পান না তিনি, দৈনিক খুনখারাপী এবং রাজনীতির ক্লেদাক্ত উপবেশনে তাঁর আগ্রহ অনুপস্থিত| শুধু হেডলাইন গুলিতে চোখ বলানো, আর স্টক মার্কেট-এর বিজ্ঞপ্তিতে চোখ রাখা| এই একটিমাত্র বিষয়ে, সরাসরি যুক্ত না হয়েও তাঁর অপার কৌতুহল| রত্নপুরে কেনা তাঁর এই বিশাল ফ্ল্যাটে লোকজন খুবই কম| পরিচারিকা, বাজার সরকার এবং নিচেরতলায় গ্যারাজে তাঁর বিশাল toyota গাড়ির রক্ষক এবং কিছু পেয়াদা| একাকিত্বের জীবন তাঁর অভ্যাস হয়ে গেছে অনেকদিন হলো| যদিও একাকিত্ব উপভোগে তিনি বিন্দুমাত্র উত্সাহী নন| ছাত্র-ছাত্রী পড়ানোয় তিনি বিশেষ খ্যাতি অর্জন করেছেন অনেকদিন হলো| এবং এতেই তাঁর সময় বেশ ভালই কেটে যায়| এবং এই একই কারনে তাঁর জীবনের উষ্ণতা শীতের রৌদ্রের আমেজের উপর্যুপরি আরো বৃদ্ধি পায়|
‘ding dong’.. কলিং বেলের আওয়াজ শুনে হাসিমুখে খবরের কাগজ নামিয়ে রাখেন তিনি| নিচে দরজা খোলার আওয়াজ হয়, এবং তার কয়েক মুহূর্ত পরেই সংযুক্তা তাঁর বসার ঘরের দোরগোড়ায় এসে দাঁড়ায়| ওর হাতে বই জড়ো করে উদরের কাছে চেপে ধরা|
তাঁর দোরগোড়ায় আঠেরোর অপরূপ সুন্দরী মেয়েটিকে দেখে মুগ্ধ হন যেনো আবার নতুন করে রতিকান্ত| এই ঝলমলে সকালেও ঘরের মধ্যে যেন আলো বিকিরণ করছে ওর রূপ!
কাঁধে এলিয়ে পরা ঘন কালো চুল, টানা টানা দুটি মায়াবী চোখ, পানপাতার মতো গরনের টকটকে ফর্সা মুখমন্ডলে দুটি লাল টুকটুকে কমলার কোয়ার মতো ঠোঁট| ওর মুখমন্ডলে অন্যতম আকর্ষনীয় বৈশিষ্ট্য হচ্ছ ওর মাঝারি আকৃতির তীক্ষ্ণ নাকটি, ওর সারা মুখের ঢলঢলে লাবন্যে যার ইশত ঔদ্ধত্য অপূর্ব দ্যোতনার সৃষ্টি করেছে| মুখে একটি টিপে ধরা মিষ্টি হাসি নিয়ে ঘাড়টি একটু ঝুঁকিয়ে দাঁড়িয়ে আছে মেয়েটি| লাল টুকটুকে একটি পাতলা সালোয়ার কামিজ ওর পরনে| সামান্য কৃশ ছিপছিপে তনুটির সঠিক স্থানে অপূর্ব বাঁক ও উদ্ধত রেখার সুডৌল উপস্থিতি| সংযুক্তা বুকে ওড়না না দিয়ে গলায় ঝুলিয়ে রেখেছে এবং সপ্রসন্ন দৃষ্টিতে রতিকান্ত দেখেন মেয়েটির সুডৌল পাকা আমের মতো দুটি সমুন্নত উদ্ধত অষ্টাদশী স্তনের লাল কামিজ টানটান করে চোখা-চোখা ভাবে ফুলে থাকা সামনের দিকে, যেন তাঁরই দিকে মাথা তুলে আছে স-অহংহ্কারে! ওর সরু কোমরের সুন্দর ভাঁজটিও স্পষ্ট কামিজের অবয়বে| টকটকে লাল সালোয়ার কামিজটি ওর দুধে আলতা ত্বকের সাথে খুবি সুন্দর মানিয়েছে|
ছাত্রীকে দেখে মৃদু হেসে রতিকান্ত সোফায় এসে বসেন চেয়ার থেকে উঠে| হাসিমুখে সংযুক্তাও এসে ওঁর পাশটিতে বসে পা একসাথে জড়ো করে| বইগুলো পাশে নামিয়ে রাখে|
-“কেমন আছেন স্যার?” সুন্দরী অষ্টাদশী হাসিমুখে শুধায়|
-“ভালো, তুমি নিশ্চই ফাঁকি দিছো!”
-“ধ্যাত!”
-“হাহা, ধ্যাত বললে তোমায় খুব মিষ্টি লাগে!”
-“হ্যাঁ, শুধু আপনারই!”
-“হাহাহা, দুষ্টু হোমওয়ার্ক সব করেছ!?”
-“করেছি, তবে সব পারিনি!”
-“তবে শাস্তির জন্য প্রস্তুত হও!”
-“স্যার, সব কি পারা যায় নকি!”
-“তা জানিনা! কাজ না করলেই শাস্তি!”
-“উফ আপনি না..!” সংযুক্তা ঠোঁট টিপে মৃদু হেসে এবার একটু নরেচরে বসে| বুকটা টানটান করে রতিকান্তর পানে| ওর সুডৌল উদ্ধত স্তনদুটি প্রকট হয়ে খাড়াখাড়া ভাবে ফুলে ওঠে লাল কামিজ ঠেলে|
-“উম্ম..” রতিকান্ত টানটান দুটি লাল টিলার মাঝে প্রসন্ন মুখে তর্জনী রেখে আলতো চাপ দেন| তারপর তিনি উঠে ঘরের দরজাটা বন্ধ করে দিয়ে এসে বার আগের মতো সংযুক্তার সামনে বসেন| ছাত্রীর বাড়িয়ে ধরা উদ্ধত বুকের উপর দু-থাবা ফেলেন্| দু হাতের সমস্ত তালু এবং সবকটি আঙ্গুল দিয়ে যেন আঁকড়ে ধরেন কামিজে টানটান নরম টিলাদুটি, খচ-খচ করে টিপতে থাকেন সে দুটি রিক্সার হর্নের মতো করে, স্তনজোড়ার সমস্ত নরম মাংস কচলে কচলে টেপেন, মনের সুখ করে| তাঁর দুটি হাতের থাবায় যে সুন্দর ভাবে ভরে উঠেছে সংযুক্তার সুগঠিত নবযৌবনের প্রানছ্বাসে ভরপুর জ্যান্ত উন্মুখ স্তনযুগল!.. পিষ্ট করে দলে মলে টিপছেন তিনি সেদুটি, আশ মিটিয়ে|
সংযুক্তা বাধ্য মেয়ের মতো চুপটি করে বসে স্যারের স্তনপীড়ন নিচ্ছে| মুখটা একপাশে একটু সরিয়ে রেখেছে সে| ব্যথা লাগলেও এই প্রাপ্য শাস্তি গ্রহনে তার আপাতভাবে আপত্তি নেই|
রতিকান্ত আরামে আহ্লাদে মৃদু হাসেন| এই চিত্রটি তাঁর ভাল্লাগে যে ছাত্রীর বুকের উপর নরম উদ্ধত মাংসপিন্ডদুটি তিনি দুহাতে ইচ্ছামতো টিপছেন এমং ও নিরবে হাত গুটিয়ে বুকটা একটু ঠেলে বিনা আপত্তিতে বসে আছে তাঁর সামনে বাধ্য মেয়ের মতো| ভীষণ আরাম হচ্ছে তাঁর সংযুক্তার স্তনজোড়া টিপতে, তাঁর দুটি থাবা যেন নরম মাংস-সমূহের উষ্ণ প্রাচুর্যে হাঁসফাঁস করছে, যত তিনি চটকাচ্ছেন| কামিজের নরম-নমনীয় কাপড়ে তাঁর অসুবিধা হচ্ছে না স্তনজোড়া টেপাটেপি করতে| বড় নরম ও প্রগল্ভ অষ্টাদশী বক্ষগ্রন্থীদুটি|
-“এই রূপসী, এদিকে তাকাও না!” সংযুক্তার স্তন দু-থাবায় টিপতে টিপতে এবার রতিকান্ত অদূরে গলায় বলে ওঠেন|
সংযুক্তা শাস্তি পাওয়া মেয়ের মতো ঠোঁটজোড়া সামান্য ফুলিয়ে তাকায় তাঁর দিকে|
-” রাগ করেছ?”
-“উম আর কতক্ষণ ধরে টিপবেন আমাকে?” আদুরে আঁচে বলে সংযুক্তা অভিমান মিশিয়ে|
-“যতক্ষন না আমার হাতদুটো ব্যথা হবে! হাহাহা..!”
-“বুঝলাম!” রাগত ভাবে চোখ নামে অষ্টাদশী ললনা|
-“হাহা…” আমুদে গলায় সুর ভাঁজেন রতিকান্ত সংযুক্তার স্তনদুটি মলতে মলতে –
“রাগ যে তোমার মিষ্টি!– রাগ যে তোমার মিষ্টি আরো অনুরাগের চেয়ে, সাধ করে তাই তোমায় রাগাই ওগো সোনার মেয়ে!”
-“ধ্যাত!”
-‘উফ, তোমাকে শাস্তি দেবার না থাকলে এক্ষুনি তোমার ওই মিষ্টি ঠোঁট দুটো টিপে দিতাম!”
-“ইশশশ!”
-“ব্রা পরেছ?”
-“এ আবার কি প্রশ্ন! ইস!”
-“উম্ খুব নরম নরম লাগছে যে! একেবারে যেন দুটো তুলতুলে স্পঞ্জের বল!… হেহে!”
সংযুক্তা চোখ তুলে এবার কটমট করে তাকাবার চেষ্টা করে মুখ টিপে হেসে ফেলে!
-“আমি কি অসভ্য দেখো!” রতিকান্ত সংযুক্তার দুটি স্তনকে এবারে বাঁহাতের চওড়া থাবায় একসাথে পরস্পরের সাথে ঠেসে ধরে ডলতে ডলতে ডানহাত নীচে নামিয়ে এনে ওর দুই উরুর ফাঁকে গুঁজে দিয়ে সমস্ত করতল দিয়ে চেপে ধরেন পাজামার উপর দিয়ে ওর যোনিস্থল…
“উফ, নরম! টাটকা! আর কি গরম রে বাবা! হাতের চেটো পুড়িয়ে দিচ্ছে যেন!” তিনি ফোঁস করে নিঃশ্বাস ফেলেন|
“আঃ, এই কি হচ্ছে! ইশশ…” সংযুক্তা এবার ঠোঁট কামড়িয়ে দেহ মুচড়ে ওঠে যখন তার শিক্ষক বাঁহাতে তার স্তন মলতে মলতে ডানহাতে এবার তার উত্তপ্ত অষ্টাদশী যোনি সালোয়ারের উপর দিয়ে কচলে কচলে চটকাতে আরম্ভ করেন…
তিনি এবার হাসতে হাসতে বলেন ” কোথায় তোমার মা ভাবছেন তাঁর সুন্দরী মেয়ে স্যারের কাছে মন দিয়ে পড়াশোনা করছে, তিনি কি ঘুনাক্ষরেও জানেন যে এই মুহুর্তে তাঁর মেয়েকে কিভাবে চটকাচটকি করতে করতে স্যার তাকে ব্রা-এর কথা শুধাচ্ছেন!”
-‘ইশশশ, সত্যি আপনি না! … মুখ বন্ধ করুন!” সংযুক্তা ছদ্ম রাগে মুখ ঝাম্টিয়ে ওঠে|
-“আচ্ছা ঠিকাছে! রাজকন্যা যা বলেন!” হেসে রতিকান্ত চুপ করেন!
কিন্তু তাঁর হাতদুটো থেমে নেই| ঘড়ির কাঁটার টিক টিক শব্দ হয়ে চলেছে, তিনি এক মনে সংযুক্তার কামিজ ঠেলে দুটি টিলার মতো ফুলে ওঠা উদ্ধত স্তনদুটি টিপে টিপে হাতের সুখ করছেন, যোনিদেশ চটকে মলে সে অংশটি আরো আগুন-উত্তপ্ত করে তুলছেন| কেউই কোনো কথা বলছে না| সংযুক্তা বিনা প্রতিবাদে পীড়ন নিচ্ছে| অপেক্ষা করছে নিষ্ঠা সহকারে কখন স্যার তাঁর অষ্টাদশী নরম সুগঠিত ডালিম-জোড়া চটকে চটকে ও নরম তুলতুলে টাটকা, উত্তপ্ত যোনি ডলে ডলে সম্পূর্ণ তৃপ্তি লাভ করবেন, কখন তার শাস্তি শেষ হবে| সে আর স্থির হয়ে সোফায় বসে থাকতে পারছে না, উত্তাপে অস্থির ময়ূরীর মতো কাতরে কাতরে উঠছে শরীর এঁকেবেঁকে শিক্ষকের পীড়নরত দুহাতের দাপটে, তার শরীরের এই দুটি অংশ দলনে পেষণে এখন যেন জ্বলন্ত অঙ্গারসম!….
-“উমমহহ .. নাও তোমার শাস্তি মকুব!” ঘড়ির কাঁটায় আরো দশ মিনিট পর সংযুক্তার স্তনে ও যোনিতে সম্মিলিত চাপ দেওয়া বন্ধ করেন রতিকান্ত| ওকে আদর করে জরিয়ে ধরে কপালে চুমু খান “এবারে কটা হামি দাও!”
-“উম্ম্মাঃ..” সংযুক্তা মিস্ষ্টি হেসে তার নরম ঠোঁটজোড়া দিয়ে রতিকান্তের গালে চক করে চুমু খায়|
-“উহু এখানে..” রতিকান্ত নিজের ঠোঁট দেখান|
-“উম্প্চ..” সংযুক্তা তাঁর লাল টুকটুকে পেলব ঠোঁটদুটি তাঁর ভারী কর্কশ ঠোঁটে চেপে চুমু উপহার দেয়|
-“হমম!” খুশি হন রতিকান্ত অষ্টাদশী নরম জীবন্ত ঠোঁটের স্পর্শে, চুমুটা উপভোগ করে তিনি হেসে এবার সংযুক্তার বই তুলে নেন| বই খুলে কয়েকটা অঙ্ক দেখিয়ে বলেন “এগুলো করো! সবকটা! কোনো ফাঁকি নয়!”
-“চেষ্টা করব|” মেয়েটি বই হাতে নিয়ে খাতা খোলে|crazyfun34.wordpress.com
রতিকান্ত ওঠেন, তারপর টেবলের ড্রয়ার থেকে একটি হালকা গোলাপী স্কার্ফ বের করে এনে সংযুক্তার কাছে আসেন| তারপর স্কার্ফটা দু ভাঁজ করে পট্টি করে ওর ঠোঁটের উপর দিয়ে জরিয়ে ঘারের পেছনে সেটির দুই প্রান্ত এনে উপর্যুপরি গিঁট দিয়ে বেশ শক্ত করে সংযুক্তার মুখ বাঁধেন|
-“উন্গ্ম্ম!.. উমমম!” বাধা না দিলেও সংযুক্তা মৌখিক প্রতিবাদ জানায় তাঁর দিকে রাগত চোখে তাকিয়ে| মুখের বাঁধন-এ তার ঠোঁট দুটি অস্পষ্টভাবে ফুটে উঠেছে, নরম গাল দুটিতে স্কার্ফের কাপর চেপে বসেছে|
-“উমম এখন শুধু অঙ্ক| কোনো সেলফোনে কথা নয়! মুখের বাঁধন খুললেই কিন্তু আমি বুঝে যাবো এসে! কি লক্ষ্মী মেয়ে হয়ে থাকবে তো?” তিনি মুখবাঁধা সংযুক্তার চিবুক আলতো করে তুলে ধরেন|
-“অম্প্ম্ম|” সংযুক্তা চোখ নামায়, মাথা নারে উপর নিচে|
“উমম” হেসে ওকে জরিয়ে ধরে ওর নাকে গালে কয়েকটা লালসমাখা চুমু খান রতিকান্ত| স্তনে চাপ দেন| -“আমার কচি বউ!”বাংলাচটিওয়ার্ল্ড.কম
-“উমমমম!” মুখের বাঁধনে গর্জে ওঠে সংযুক্তা, চোখ পাকায়|
-“হাহাহাহা!” অট্টহাস্য করে উঠে পরেন রতিকান্ত, দরজা বন্ধ করে চলে যান বাইরে|
সংযুক্তা মন দিয়ে স্যারের দেওয়া অঙ্ক করছিলো একা সোফায় বসে বসে| তবে আধ-ঘন্টা পর-ই সে একঘেয়েমিতে উঠে পড়ে| মোবাইল থেকে কয়েকজন কে sms করে কিছুক্ষণ| তারপর উঠে কিছুক্ষণ বিশাল ঘরটায় ঘুরে বেড়াতে থাকে| জানলার কাছটায় এসে কিছুক্ষণ তাকিয়ে থাকে বাইরে, তারপর আবার ফিরে এসে ঘরের অন্যপ্রান্তে যায়, সেখানে বড় আয়নাতে নিজেকে চোখে পরতেই সে চমকে ওঠে| মুখের বাঁধনের কথাটা সে ভুলেই গেছিলো, নিজেকে মুখবাঁধা অবস্থায় দেখে অস্বস্তি হয় তার| চোখ সরিয়ে নিয়ে সে ফিরে আসে সোফায়| কিছুক্ষণ বিশ্রাম নিয়ে সে আবার অঙ্কে হাত দেয়|
রতিকান্ত ফিরে আসেন ঠিক এক ঘন্টা পনেরো মিনিট পর| এসে তিনি দরজা ভেজিয়ে সোফায় সংযুক্তার পাশে বসে ওকে ঘনিষ্ঠ করে জড়িয়ে ধরেন নিজের কোলে তুলে| অষ্টাদশী তরতাজা মেয়েটিকে নিজের শরীরের সাথে চেপে উষ্ণতায় ওর নাকে, গালে, কপালে, চিবুকে প্রভৃতি অংশে চুমু খেতে থাকেন গভীর আবেশে| “উমমমহ্হ্হঃ ,.. উমহমম …”
সংযুক্তা বিশেষ প্রতিবাদ করে না| স্যারের কোলে বসে ওঁর বাহুবন্ধনের ঘনিষ্ঠতায় আদর খায়… মুখ বাঁধা বলে কথা বলতে বা বিশেষ শব্দ না করতে পেরে মাঝে মাঝে শুধু অল্প ‘উম-উম’ করতে থাকে নরমভাবে|
রতিকান্তের চুমুর চপ-চপ শব্দ এবং আবিষ্ট আদূরে আওয়াজে ঘর ভরে উঠছিলো| নরম উত্তপ্ত তরুণী জীবন্ত দেহটি পেয়ে তিনি যেন আর কিছু চান না| নিজের ঠোঁটের নিচে কোমল সুগন্ধি ত্বকের স্পর্শ, বুকের কাছটায় সুডৌল স্তনের নরম চাপ ও উষ্ণতা, ঘাড়ে-গালে উত্তপ্ত মোলায়েম নিঃশাসের আদূরে ছোঁওয়া, সব মিলিয়ে তিনি বড়ই উপভোগ করছেন সকালের আমেজটি|
পাক্কা সুদীর্ঘ কুড়ি মিনিট ধরে সংযুক্তাকে এভাবে ভোগ করার পর ওকে কোলে বসিয়ে রেখেই ওর চিবুক তুলে ধরে তিনি শুধান :
-“কি লো সুন্দরী, সব অঙ্ক হয়েছে?”
-“উম্মম|..মম|” সংযুক্তা ছোট্ট করে বলে তার সীমাবদ্ধ বাকস্বাধীনতা নিয়ে|
-“কই দাও, দেখি”
-“হ্প্ম,.. উম্মম|” সংযুক্তা খাতা এগিয়ে দেয় রতিকান্তকে| ঘাড়ে এসে পরা কিছু চুলের গোছা সরিয়ে|
রতিকান্ত মন দিয়ে অঙ্কগুলি দেখতে থাকেন| কিছু পরে একটি অঙ্কর দিকে তাকিয়ে তিনি বলে ওঠেন:
-“লিমিট দাও নি কেন? কেটে জিরো!”
-“উম্মম্মম্মম! …উহ্ম্ম্ম! প্পম! মমম!” সংযুক্তা ভ্রু কুঁচকে শরীর ঝাঁকিয়ে প্রতিবাদ করে ওঠে অনেককিছু বলতে চেয়ে, কিন্তু মুখ শক্ত করে বাঁধা বলে বিশেষ কিছুই বোঝাতে পারে না গুঙিয়ে ওঠা ছাড়া| ওর সামনে রতিকান্ত কেটে শুন্য বসালে করুন শব্দ করে মাথা নামায় ও| শুধু প্রতিবাদে মুখের বাঁধনের উপর ওর তীক্ষ্ণ নাকের পাটা সামান্য ফুলে ফুলে ওঠে|
-“হমম..” রতিকান্ত দেখতে দেখতে এবার এক জায়গায় এসে হঠাতই অপ্রসন্ন হয়ে সংযুক্তাকে কাছে টেনে ওর কামিজে স্ফীত হয়ে থাকা নরম বক্ষদেশ পেন শুদ্ধ ডানহাতের থাবায় মুঠো পাকিয়ে তুলে বলেন -“উফ, মেয়ে তোকে আর কত integration শেখাবো! বল?”
-“মুম্ম্ম?” সংযুক্তা জিজ্ঞাসু চোখে চায়|
রতিকান্ত হতাশায় মাথা নেড়ে দীর্ঘশ্বাস ফেলেন| তারপর সংযুক্তার বুকের উপর লাল কামিজে দুটি পরিপক্ক আমের আকারে উঁচু হয়ে ফুলে থাকা বক্ষপিন্ডের ডান দিকেরটি ডান থাবায় ধরে নরম বক্ষমাংস চটকাতে চটকাতে বাম হাতে খাতা এনে দেখান “এটা কি করেছে আমার প্রিয়তমা ছাত্রী? উম?”
-“উমমম, হুহুম্ম!..” সংযুক্তা খাতার দিকে তাকিয় আবার কিছু বলার বিফল চেষ্টা করে মুখের বাঁধনে|
-“উম্ম..” এদিকে সংযুক্তার উন্নত স্তনটি চটকানোর আরামে আর থাকতে না পেরে উত্তেজিত হয়ে রতিকান্ত এবার ছাত্রীর ফুলে থাকা দুটি স্তনই দু থাবায় কামিজ-সহ মুঠো পাকিয়ে তুলে সজোরে পীড়ন করেন সমস্ত নরম মাংস কচলে কচলে চটকে,.. “আহঃ.”
-“ম্ন্গ্ন্ম্ম্ম!!” সংযুক্তা মুখের বাঁধনে তীব্র প্রতিবাদ করে, অবাধ্য মেয়ের মতো শরীর মুচরে ওঠে রতিকান্তের কোলে| স্যারের দু মুঠোর মধ্যে নিজের আকর্ষনীয় স্তনদুটি কামিজসহ নানাভাবে আকারে বিকৃত হতে দেখতে আর সে পারছেনা| নির্মম ভাবে রিক্সার হর্নের মতো তার সুগঠিত স্তনজোড়া মুঠোয় টিপে টিপে তিনি দফারফা করছেন!টিপে ধরার সময় লাল কামিজসহ তার স্তনদুটি ওঁর মুঠোর মধ্যে দিয়ে ডিম্বাকারে ফুলে উঠছে বারবার| “উন্হ্ম্ম্ম্ম্ম!” সে অসন্তোষ প্রকাশ করে দুবাহু ঝাঁকিয়ে|
-“আহ্হঃ… উম্মম!” দুটি থাবায় অষ্টাদশী নরম, প্রগল্ভ, ছটফটে স্তনদুটি চটকে টিপে কিছুতেই যেনো আর আশ মিটছে না রতিকান্তের| অল্পবয়সী সুন্দরী মেয়ের উদ্ধত স্তন নিয়ে খেলা করা যে তাঁর কি প্রিয়,.. তবুও শিক্ষকসুলভ দায়িত্বে তিনি মেয়েটির নরম বক্ষ থেকে দু হাত তুলে এবার ওর মুখের বাঁধন খুলে দেন|
-“স্যার, সত্যি বলছি ওদুটো আমি এবার বাড়িতে রেখে পড়তে আসবো!” সংযুক্তা বাক্যাধিকার ফিরে পেয়েই বলে ওঠে|
-“উম্ম” ওকে অত্যন্ত ঘনিষ্ঠ ভাবে জরিয়ে ধরে রতিকান্ত বলেন “integration পারো না কেন এত শেখানোর পরও দুষ্টু রূপসী? উম্ম?”
-” জানিনা|” সংযুক্তা ঠোঁট ফুলিয়ে স্যারের বাহুবন্ধনে আদুরে রাগ নিয়ে বলে ওঠে|
-‘উম্প্চ” রতিকান্ত থাকতে না পেরে আঠেরো বছর বয়সী মেয়েটির ঠোঁট পিষ্ট করে করে চুমু খান|
-“আহ,” মেয়েটি ওঁর চুম্বনের তীব্রতায় কঁকিয়ে ওঠে|
-“উমমমম, উহ্ম্ন্ন্ন..” পরমা সুন্দরী অষ্টাদশী মেয়েটির নরম উত্তপ্ত তনুটির ঘনিষ্ঠ আরামে ওর মুখ-বুক-নরম তুলতুলে ফর্সা স্তনের সুগন্ধে উত্তেজিত হয়ে আর থাকতে না পেরে রতিকান্ত এবার ওর ঠোঁটে, চিবুকে, নাকে, গালে, গলায় চুমু খেতে খেতে ওর জীবন্ত নরম দেহটি নিবিড় বাহুবন্ধনে নিজের সাথে চেপে ডলাডলি করে ওকে ভোগ করতে থাকেন তিনি|
“উমমম..” সংযুক্তা এবার বাধ্য মেয়ের মতো বিনা বাধায় স্যারকে তাকে উপভোগ করতে দেয় চুপটি করে|
-“উমমম..” কিছুক্ষণ এমনভাবে মেয়েটির নরম শরীরের উত্তাপ্ ডলাডলি করে গাযে মেখে মেখে ওকে চপ চপ করে চুমু খেতে খেতে তিনি উষ্ণতায় আদরজরানো গলায় বলে ওঠেন “সংযুক্তা, বিছানায় চলো না, তোমাকে একটু ভালো করে আদর করি!”
-“ইশশশ, কি শখ!”
-“প্লিজজজ!!”
-“উমমম” সংযুক্তা নিমরাজি মতো হয়ে ঘাড় নাড়ে|
-“উম ঠিকাছে, ” খুশি হয়ে রতিকান্ত বলে ওঠেন “তুমি লক্ষ্মী মেয়ের মতো ঘরে গিয়ে শোও, আমি আসছি কয়েকটা কাজ সেরে”
ঘরে ঢুকে দৃশ্যটি দেখে যারপরনাই প্রসন্ন হন রতিকান্ত| তাঁর বিশাল গদিমোরা বিছানায় চিত্ হয়ে দেহ এলিয়ে শুয়ে আছে সংযুক্তা| কামিজের ওরনাটি ওর গলা থেকে লুটাছে বিছানায়| একরাশ কালো চুল ছড়িয়ে আছে, মাথার চারপাশে| ওর বুকের দিকে তাকাতেই হৃদয় চলকে ওঠে রতিকান্তের| চিত্ হয়ে শোওয়ার ফলে ওর লাল কামিজ ফুঁড়ে উদ্ধত পরিপক্ক স্তনজোড়া অত্যন্ত আকর্ষনীয় ভাবে খাড়া-খাড়া হয়ে যেন সিলিং-এর দিকে তাক করে আছে! স্তনযুগলের স্পর্ধা সহ্য করতে না পেরে রতিকান্ত দ্রুত বিছানায় উঠে অপরুপা অষ্টাদশী’র পাশে আধশোয়া হয়ে দু-থাবায় চেপে ধরেন ওর স্ফীত বক্ষদুটি আবার| দ্রুতগতিতে শক্ত হাতে সেদুটিকে দুটি লেবুর মতো কচলে কচলে ডলতে থাকেন কামিজসহ| সংযুক্তার বুকের জ্যান্ত দুটি প্রগলভ বক্ষ গ্রন্থির নরম মাংস আবার কচলিয়ে মাখতে মাখতে তাঁর দুহাতের ক্ষুধার্ত তালুদ্বয় হাঁসফাঁস করে, মেয়েটির নরম বক্ষদুটি তিনি যেনো টিপে টিপে সেদুটির সমস্ত নরম-পুষ্ট নির্যাস নিষ্কাশন করে নেবেন আজ, এমন তাঁর প্রতিজ্ঞা!
-“আঃ..” কঠিন স্তনপীড়নে অস্ফুটে কঁকিয়ে উঠে রতিকান্তের বিছানায় শায়িতা তরুনীটি দেহ মোচড়ায়| বোঝা যাচ্ছে কোনো বাধা না দিলেও, নিজের আকর্ষনীয় স্তন সুন্দরীদের এমন হেনস্থায় সে খুব একটা খুশি নয়|
-“উম্ম রূপসী পরি আমার!” সংযুক্তার স্তনদুটি খচ খচ করে চটকাতে চটকাতে রতিকান্ত মুখ নামিয়ে এনে ওর ফোলা নরম ওষ্ঠাধরে চক করে চুমু খান, দ্বিতীয়বার চুমু খেতে গেলেই মেয়েটি মুখ সরিয়ে নেয়|
-“কি হলো সুন্দরী? আবার বুক টিপছি বলে রাগ?”
-“ধ্যাত, না!” সংযুক্তা উত্তপ্ত স্বরে বলে| তারপর আপাতভাবে স্যার তার স্তনদুটি কর্কশভাবে চটকানোয় সে কিছুই মনে করছেনা এমন মুখভঙ্গি করে সে ওঁর দিকে মুখ ফিরিয়ে আদূরে ভাবে ঠোঁট ফুলিয়ে ডানহাতটি একটু তুলে তাঁর পাঞ্জাবির তা নিয়ে নারাচারা করে, -“উমমম আমার এখানে ভালো লাগছেনা স্যার!”
-“সেকি!” ছাত্রীর স্পঞ্জের মতো নরম স্তনটিলাদুটি শক্ত হাতে চটকে চটকে শায়েস্তা করতে করতে উদ্বিগ্ন চোখে তাকান রতিকান্ত ওর মুখপানে -“মাকে ফোন করে সেকথা বলেছ?”
-“উম্ম বলেছি” সংযুক্ত স্যারের দুথাবার তলায় বুকটা একটু ঠেলে শরীর মোচরায় তাঁর শক্ত পীড়ন সইয়ে নিতে -“মা শুনছেনা, বলছে মানিয়ে নিতে!”
-“উম্ম অসুবিধা কিকি হচ্ছে সোনামনি?”
-“নোংরা মেস, খাবার ভালো না! আমার থাকতে ভালো লাগে না! মেসের মেয়েগুলোও অত্যন্ত জঘন্য! কথাও বলা যায়না ওদের সাথে!” সংযুক্তা ঠোঁট ফোলায়|
-“উম্ম আহাগো রূপসী আমার,..” সংযুক্তার নরম স্তনদুটি তালু দিয়ে চেপে ধরে রেখে তিনি দুহাতের আঙ্গুলগুলি প্রসারিত করে ওর চিবুক ছোঁন “আমি অবশ্যই ব্যবস্থা করবো!”
-“কি ব্যবস্থা?”বাংলাচটিওয়ার্ল্ড.কম
-‘উম্ম সব বলছি, তার আগে তোমাকে ভালো করে চটকাই আদর করি?
উম্ম?” বলে রতিকান্ত তাঁর নিচে শায়িতা পরমা সুন্দরী তনয়ার উদ্ধত ফুটন্ত স্তনদুটি দু থাবায় আরো বেশ কয়েকবার ভালো করে চটকে নিয়ে সেদুটি ছেরে দুহাতে অষ্টাদশী সংযুক্তার লাল টুকটুকে সালোয়ার কামিজে মোড়া দেহটি নিবিড় ভাবে জরিয়ে ধরেন ওর শরীরের উপর উঠে এসে| নিজের ভারী শরীর দিয়ে ওর নরম্ উত্তপ্ত তনুটি ডলতে ডলতে ওকে চুমু খেতে খেতে আদুরে স্বরে বলেন “তুমিও আদর করো না সুন্দরী বুড়ো মানুষটাকে, উম?”
-“করছি তো!” উত্তপ্ত স্বরে বলে সংযুক্তা পিতার বয়সী মানুষটির স্থুল শরীরটি নিজের নরম দুই বহুলতা দিয়ে জরিয়ে ধরে| প্রতিচুম্বন করে| চুমা ও আদরের শব্দে ঘর ভরে ওঠে|
-“উমমম..” আরামে আবেশে ভাসেন রতিকান্ত, অপরুপা মেয়েটির নরম উত্তপ্ত তরুণী শরীরটি নিজের তলায় নরম বিছানার সাথে ডলতে ডলতে ওর বাহু-আলিঙ্গনে ওর নরম সুগন্ধি ঠোঁট দুটির চুমুর স্পর্শ গালে ঠোঁটে চিবুকে নিতে নিতে সম্পূর্ণ মজে ওঠেন তিনি| এবার আরাম পেয়ে তিনি ওর দেহের উপর নিজের নিম্নাঙ্গ ঘষতে শুরু করেন, পাজামার মধ্যে আবদ্ধ নিজের লৌহ-শক্ত পুং-দন্ডটি ডলাডলি করতে থাকেন ওর নরম-গরম থাই, উদর, জংঘা প্রভৃতি অংশে|
-“উমমম, ইশশশ!” সংযুক্ত ওঁর নিচে চুমু খেতে খেতে গুঙিয়ে ওঠে ওঁর পুরুষাঙ্গের কঠিন দলনের স্পর্শে, “স্যার লাগছে, আপনার ‘ওটা’ ভীষণ শক্ত তো!” সে আদুরে উত্তপ্ত স্বরে বলে ওঠে|
-“উম্ম,.. হু হু…” রতিকান্ত সংযুক্তার নরম দেহটি নিজের শক্ত পুরুষাঙ্গ বিঁধিয়ে গেঁথে ধরেন বিছানার সাথে| ‘উমমম, সুন্দরী, খুব ভালো লাগছে আমার তোমার নরম কচি ছটফটে এই শরীরটায় ওটা রগড়াতে, উমমম, মনে হচ্ছে নরম-গরম স্পঞ্জের মধ্যে দাবাচ্ছি ওটাকে, উম্ম.. কতদিন এমন তাজা কচি শরীর রগড়াইনি তলায় ফেলে… উম্ম” তিনি ভারী ভারী চুম্বন করতে থাকেন ওর গালে, ঠোঁটে|
-“আঃ.. ইশশ, আমার পেটটা ফুটো করে দেবেন নাকি?’ কঁকিয়ে ওঠে সংযুক্তা| আদর করে রতিকান্তের টাকে হাত বুলিয়ে ওঁর গালে নরম চুম্বন দেয় “প্চুম”
-“উম্ম..” আহ্লাদে নিজের কঠিন জাগ্রত পুরুষাঙ্গটি পাজামার ভেতর থেকে সংযুক্তার তুলতুলে নরম ও উত্তপ্ত জংঘায় চেপে ধরেন রতিকান্ত| কঠিন চাপ দিয়ে তা ডলতে থাকেন সেখানে| সংযুক্তাকে বিছানায় পেষণ করে করে|..” উম্ম আমি তোমাকে ভালোবাসি দুষ্টু মেয়ে, আদর করো আমাকে, উমমমম!!”
-“করছি তো! উমমম, ” আদুরে স্বরে গুঙিয়ে উঠে সংযুক্তা রতিকান্তের গলায় বাহুবন্ধন আরো দৃঢ় করে ওনাকে ঘনভাবে চুমু খেতে থাকে “উম্ম্প্চ, মমম,.. প্প্চ্চ”
-‘আঃ, কি আরাম, আঃ সংযুক্তা আজকে করবো তোমায়, ..” তিনি উত্তেজিত হাতে সংযুক্তার সালোয়ার-এর দড়ি খোলেন, সাথে নিজের পাজামার দড়িও|
-“ইসসস স্যার পরশুই তো করলেন.. আঃ” সংযুক্তা কঁকিয়ে ওঠে যখন কোনো দ্বিধা ছারাই রতিকান্ত তাঁর শক্ত উন্মুক্ত পুং-দন্ডটি ওর সদ্য-উন্মুক্ত নরম ফুলেল যোনির উত্তপ্ত অভ্যন্তরে আমুল ঢুকিয়ে দেন, তার যোনির পেশীসমূহ রতিকান্তের কঠিন আক্রমনকারী দন্ডটিকে শক্তভাবে চেপে ধরে|
-“আঃ, ” আরামে আবেশে রতিকান্তও কঁকিয়ে ওঠেন .. “আহ, রূপসী, কিভাবে কামড়ে ধরে তোমার দুষ্টুটা আমার ওটাকে! ইশশ!”
-“উহ্ম্ম,..” সংযুক্তা রতিকান্তের নিচে তার লাল ঠোঁট কামড়িয়ে ওঠে|
-“উম্ম্ম্ম্ম্ম..’ দেহের নিচে শায়িতা অষ্টাদশী পরমা সুন্দরীর উত্তপ্ত, নরম-আঁটো যোনির মধ্যে নিজের পুরুষাঙ্গ আমুল বেঁধানো অবস্থায় মুখ নিচু করে চুমু খান, দুহাতে ওর হালকা নরম দেহটি আরো নিবিড়ভাবে জরিয়ে ধরেন “রাগ করলে নাকি সুন্দরী?”
-“ভীষণ!” সংযুক্তা গুমরিয়ে ওঠে ঠোঁট ফুলিয়ে|
-‘উমমমম..” রতিকান্ত চার পাঁচটা চুমু খান ওঁর ফোলানো ঠোঁটে পরপর, অনুভব করেন তাঁর বুকের তলায় স্পঞ্জের মতো নরম ওর দুটি প্রগল্ভা স্তনের পিষ্ট হয়ে ডলা খাওয়া| অনুভব করেন ওর সংক্ষিপ্ত যোনির গভীর অভ্যন্তরস্থ উত্তাপে তাঁর তাগড়াই পুরুষাঙ্গের দপদপ স্পন্দন- “উম্ম কেন, বার্থ পিল নাওনি?”
-“উম্প্চ.. তো?” সংযুক্তা নরম করে ওঁর ঠোঁটে চুমু আঁকে ” এবার কি করবেন আমায়?”
-“উমমম ” রতিকান্ত হেসে আরামে উত্তাপে সংযুক্তার নরম সুগন্ধি ঠোঁটে ঠোঁট ঘষতে ঘষতে বলেন “এবার আমি তোমায় জ্যান্ত খেয়ে নেব যে রূপসী পরি আমার … উম্ম্ম্ছঃ” তিনি এবার কোমর চালিয়ে ওর যোনির মধ্যে লিঙ্গ সঞ্চালন শুরু করে দৃঢ় ভাবে মন্থন করতে থাকেন ওকে|
-‘উআআঃ ” কঁকিয়ে ওঠে সংযুক্তা রতিকান্তের নিচে পিষ্ট হতে হতে|
~~~~~~~~~~~~~~~~~~~~~~~~~~~~~~~~~~~~~~~~~~~~~~~~~~~~~~~~
ঘষা কাঁচের জানলা দিয়ে সকালের নরম রৌদ্রে ভরপুর ঘর| বিছানায় মৃদু ক্যাঁচ-ক্যাঁচ শব্দ হচ্ছে| সংযুক্তার অষ্টাদশী তনুটিকে আরাম করে, আয়েশ করে মনের মতো করে মন্থন করছেন রতিকান্ত| ওর লাল কামিজে অভিমানী-ভাবে ঠাটিয়ে ফুলে আছে দুটি সমুন্নত স্তন, তিনি মাঝে মাঝেই ডান হাত উঠিয়ে সেদুটি একটি করে থাবা মেরে কঠিন নিষ্পেষণে চটকে দিচ্ছেন, কখনো বা ওর গালে, চিবুকে হাত বুলিয়ে আদর করছেন, ওর কপাল থেকে চুল সরিয়ে আদর করছেন| সংযুক্তাকে মন্থনের বেগ তাঁর নিয়ন্ত্রিত| মন্থন করতে করতে কামনার বেগ বেশি চলে আসলেই তিনি বেগ কমিয়ে দিয়ে অত্যন্ত ধীর প্রশমিত গতিতে মন্থন করছেন মেয়েটিকে| তারপর আস্তে আস্তে গতি বাড়াছেন, তারপর আবার কমাচ্ছেন এবং বাড়াচ্ছেন নিজের ইচ্ছামতো| ওর অষ্টাদশী সংক্ষিপ্ত যোনির শ্বাস্ রুধ্ধকর নরম পশম আরামে লিঙ্গ ঠেসে ঠেসে| উপভোগ করে করে|
সংযুক্তাও বুঝে গেছে যে রতিকান্ত এই মন্থনসুখ থেকে সহজে বিরত হবার পরিকল্পনা করছেন না| এখন দীর্ঘ সময় ধরে তাকে উপভোগ করবেন তিনি| সে এতক্ষণে মানিয়ে নিয়েছে পরিস্থিতিটি| তার সালোয়ার আবৃত দুই পা জরিয়ে রেখেছে র্রতিকান্তের স্থুল কোমর, তার অষ্টাদশী যোনির মাংসপেশীসমূহ নিষ্কাশন করছে প্রবিষ্ট শক্ত পুরুষাঙ্গটিকে| আদুরে মেয়ের মত রতিকান্তের দেহের তলায় সে তাঁর মন্থন নিতে নিতে দুই বাহু দুদিকে ছড়িয়ে রেখেছে| মাঝে মাঝে ঠোঁট বাড়িয়ে চুমু দিচ্ছে, চুমু নিচ্ছে| কখনো-সখনো ওঁর টাকে, মাথায়-গলায় হাত বুলিয়ে আদর করে ওঁর যৌনমিলনের সুখ বৃদ্ধি করছে|
-“উম্ম্ম্হ সংযুক্তা তুমি কি অসম্ভব সুন্দরী! কি আকর্ষনীয় তোমার শরীর, আমার মতো বুড়ো মানুষের নিচে এমন ঠাপ নিতে তোমার ভালো লাগছে উম্ম? রতিকান্ত মন্থন করতে করতে আবিষ্ট ভাবে বলে সংযুক্তার ঠোঁটে চপ করে চুমু খান|
-“ইশশশ স্যার, মুখের ভাষা ঠিক করুন! ছিঃ!” সংযুক্তা ওঁর মৈথুনের তালে তালে অল্প দুলে দুলে উঠতে উঠতে বলে উষ্মা সহকারে|
-” হাহাহা, কেন সুন্দরী, এত বাধা কেন?” রতিকান্ত আরামে হেসে বলেন|
-“ইশশশ আপনি না শিক্ষক! আপনার মুখে এমন ভাষা মানে না!” সংযুক্ত ঠোঁট টিপে হেসে বলে|
রতিকান্ত শরীরের নিচে নিবিড়ভাবে মন্থিত হতে থাকা অপরুপা অল্পবয়সী মেয়েটির রসিকতায় আহ্লাদিত হয়ে হাসেন, “তাই ন্নাকি রূপসী? প্চ্ম্ম..”
তিনি চুমু খান ওর গালে, ” ঠিক আছে, আমি যদি বাংলা শিক্ষক হতাম ভাষার বাহাদুরি দেখিয়েই দিতাম!”
-“হিহি দেখতাম তখন, উমমম” সংযুক্তা তার সুন্দর দন্তপঙ্গক্তি মেলে অপরূপ হেসে তলা থেকে তার যোনির মধ্যে আঁটা রতিকান্তের শক্ত লিঙ্গ সহ শরীরে মোচড় দিয়ে ওঠে প্রগলভ দুষ্টামিতে|
-“আঃ, দুষ্টু উমমম..” রতিকান্ত ওর এমন কাজে উত্তেজিত হয়ে ওকে বিছানায় ডলে ডলে মন্থন করতে থাকেন… রতিক্রিয়ার বেগ আটকে রাখা দায় হচ্ছে তাঁর পক্ষে এমন ছটফটে সুন্দরী মেয়ের সাথে…
-‘আঃ স্যার” গুঙিয়ে ওঠে সংযুক্তা ওঁর নিচে|
-“উমমম … ” কামনার বেগ তীব্রতর হতে হতে হুড়মুড়িয়ে চলে আসতে থাকে রতিকান্তের,.. তিনি শেষ অবধি সংযুক্তার যোনির গভীরতম ভেতরে লিঙ্গ ঠেসে ধরে দাঁতে দাঁত চেপে বেগ সংবরণ করেন|…”আহ্ছ্হ্ঘ্ঘ্ঘ …!!!”
-‘উহ্ম্ম্ম ..” সংযুক্তা ওঁর নিচে পিষ্ট অবস্থায় অনুভব করে তার যোনির গহিনে ঠাসা লিঙ্গের দপদপ স্পন্দনের তিব্রতা|
“উন্হ্ম্ম , দুষ্টু মেয়ে! আমার থেকে তারাতারি ছাড়া পাবার ধান্দা?” রতিকান্ত সংযুক্তার তলার লালা টুকটুকে ঠোঁটটি কামড়ে ধরেন আলতো করে|
-“হিহিহিহি…’ সংযুক্তা উত্তপ্ত হেসে ওঠে ওঁর তলায়, রতিকান্ত সারা শরীরে তার অনুরণন বোধ করে| ওর ঠোঁট ছেরে আবার দাঁতে দাঁত চাপেন তিনি, ওর বিন্দুমাত্র নরাচরাতেই যেন বীর্য ছিটকে বেরিয়ে আসতে চাইছে তাঁর প্রবিষ্ট উত্তেজনায় টনটন করতে থাকা দন্ডটি থেকে| নিথর থাকতে চেষ্টা করেন যিনি ওকে নিচে চেপে রেখে..
-“আঃ” গুঙিয়ে ওঠে সংযুক্তা রতিকান্তের শরীরের পিষ্ট করা চাপে, ওর সংক্ষিপ্ত যোনি অত্যন্ত শক্তভাবে চেপে ধরেছে তাঁর স্খলন-উন্মুখ পুরুষাঙ্গটিকে| দম বন্ধ করে রেখে নিজের প্রবীন স্থূল মুখের তলায় ঝাপসা চোখে দেখেন তিনি সুন্দরী অষ্টাদশীর লাল কামিজ, লাল টুকটুকে কোয়ার মতো দুটো ঠোঁট,.. আগুন নিশ্বাস ফেলেন তিনি যৌনসুখের জ্বরে| ওর যোনির কামড়ে খাবি খেতে থাকা লিঙ্গ নিয়ে তিনি এবার উত্তপ্ত জ্বর-নিঃশ্বাস ফেলে ওর উষ্ণ, নরম, সুগন্ধি গণ্ডদেশে ঠোঁট-নাক দাবান|-“উম্ম্ম্হঃ”
-“আহঃ” সংযুক্তা ওঁর নিচে পিষ্ট অবস্থায় শ্বাস ছাড়ে| তার নাসারন্ধ্র ইশত স্ফীত হয় ক্লিষ্ট শ্বাসে| নিজের উপর রতিকান্তের বিশাল যৌনসুখে কাঁপতে থাকা অসহায় দেহটি সে এবার দুবাহু দিয়ে বেষ্টন করে আদর করে ওঁর ঠোঁটে, নাকে গালে নিজের নরম ঠোঁটজোড়া দিয়ে চুম্বন করতে থাকে| ওঁকে আরাম দিতে থাকে|
এভাবে অনেক্ষণ সময় কেটে যায়| কামনার বেগ প্রশমিত করে ধাতস্থ হন রতিকান্ত| ধীরে ধীরে আবার মন্থন শুরু করেন, খাটে ক্যাঁচ-ক্যাঁচ শব্দ শুরু হয় আবার|
-:উমমমম!” পুনরায় রতিকান্তের মন্থন নিতে নিতে ঠোঁট ফুলিয়ে অদূরে অভিমানী ভঙ্গি করে সংযুক্তা “উফ, স্যার আপনি কি আমায় করেই যাবেন, করেই যাবেন?”
-“উম্ম্ম্হ” অষ্টাদশী মেয়েটিকে মন্থন করতে করতে যৌনসুখে গুঙিয়ে উঠে রতিকান্ত বলেন “উম সুন্দরী, আমার সাত-বংশ রত্নপুরের জমিদার, সুন্দরী কচি মেয়ে কি আমরা কখনো সহজে ছাড়ি! হাহাহা!! উমমমম!” তিনি বলতে বলতে সংযুক্তার নরম ঠোঁট, গাল প্রভৃতি নিজের ঠোঁট দিয়ে পিষ্ট করে করে চপ চপ শব্দে চুমু খান অনেক কটি| চুমু খেতে খেতে তিনি আবেশে তিনি ওর নরম মসৃন গালে ঠোঁট ডলে ঘসরাতে ঘসরাতে ঘর্ঘর শব্দ করতে থাকেন|
-“উন্ম্মঃ!” গুঙিয়ে ওঠে সংযুক্তা ওঁর ভোগ প্রাবল্যে| কিন্তু আদূরে মেয়ের মতো ওঁর টাকে হাত বুলিয়ে সুরসুরি কেটে আরাম দেয়|
-“হমমম” মন্থন করতে থাকা অষ্টাদশীর কমলার কোয়ার মতো লাল টুকটুকে ঠোঁট দুটি মুখে নিয়ে চুষতে শুরু করেন রতিকান্ত এবার| মন্থনের তালে তালে ওর রসালো ঠোঁট জোড়ায় কামড়ও দিতে থাকেন বারবার, জিভ ঢুকিয়ে দেন, এবং মুখের ভেতরে ধ্বনিত ওর গোঙানিগুলি উপভোগ করতে থাকেন| কিছুক্ষণ সংযুক্তার ঠোঁটদুটো চেটেপুটে খেয়ে তিনি ওর সুগন্ধি গালে কামড় বসান ওর নরম, আগুন-উত্তপ্ত সংক্ষিপ্ত অস্টাদশী যোনির অভ্যন্তরে তাঁর কঠিন, উত্তেজিত পুরুষাঙ্গ আরো নিবিড়ভাবে ঠাসতে ঠাসতে| সংযুক্তা নিজের সদ্য উন্মুক্ত ওঁর লালে টসটসে ভেজা ঠোঁটদুটো অল্প ফাঁক করে গুঙিয়ে ওঠে “আঘঃ!” বিছানার ক্যাঁচ-ক্যাঁচ শব্দ আরো তীব্র হয়|
দীর্ঘক্ষণ ধরে মন্থিত হতে হতে সংযুক্তার ফর্সা গন্ডদেশদ্বয় লাল হয়ে উঠেছে, শ্বাস-প্রশ্বাস উত্তপ্ত ও তীব্রতর| সে চোখ বুজে মুখটি একপাশে সরায়| ওর ঘন কালো চুলের সম্ভার রতিকান্তর নাকে এসে পরে| তিনি অষ্টাদশী মেয়েটির নরম প্রগল্ভা তনুটি নিজের তলায় নরম বিছানায় ডলে ডলে মন্থন করতে করতে সেই ঘন চুলে নাক মুখ দাবান| ঘষতে থাকেন মুখ সেখানে নিজের আগুন গরম নিঃশ্বাসে ওর কেশারন্য তোলপার করতে করতে| তাঁর দলনে রত পুরুষাঙ্গে ভীষণ আরাম অষ্টাদশীর উত্তপ্ত্ যোনি-দেওয়ালের চাপে ও ঘর্ষণে এবং সেটির সমূহ নিষ্কাশনরত মাংসপেশির আক্রমনে|
মেয়েটির কামিজে ঠাটিয়ে ফুলে ওঠা দুটি উদ্ধত স্তনপিন্ড তাদের সমস্ত উগ্রতা নিয়ে ঘষা খাচ্ছে তাঁর গলার কাছে রতিক্রিয়াকালীন| তিনি থাকতে না পেরে লোভী ডান থাবা তুলে পাকড়ে ধরেন সংযুক্তার উগ্র বাম স্তনটি| উন্মাদের মতো শক্ত হাতে সেই মাংসপিন্ডটি চটকে চটকে যেন নিষ্কাশন করতে চান অষ্টাদশী স্তনের সমস্ত রস, মন্থন করতে করতে… “আহঃ, কি নরম, ঠাটানো কচি,..উফ..!” তিনি আরামে. সুখে ঘর্ঘর করতে করতে সুগন্ধি চুল ভরা ঘরে নাকে মুখ ডলতে ডলতে এবার দুহাতে কামিজসহ সংযুক্তার দুটি পাকা ডালিম আকৃতির স্তন নৃশংস ভাবে টিপে ধরেন “আঃ, কোথায় থাকিস তোরা সুন্দরীরা? উম্ম? বুড়ো মানুষের মনে জ্বালা ধরানো রূপসী! ঠাটানো, উঁচু-উঁচু তরতাজা নরম তুলতুলে দুটো বুক নিয়ে সারা পাড়া মাতিয়ে বেড়ানো টাইট টাইট গেঞ্জি আর কামিজ পরে! উম্ম?” তিনি এবার শক্তিপ্রয়োগ করে সংযুক্তার কামিজ-মোড়া স্তনদ্বয় দু-থাবায় কচলাতে কচলাতে কামড় দেন ওর চিবুকে, ওর উত্তপ্ত যোনির গভীরতম অভ্যন্তরে শক্ত নির্মম পুরুষাঙ্গ বিঁধিয়ে দিয়ে “উফ, জানিস না আমরা তোদের বদমাইশ এই-দুটো টিপে টিপে দফারফা করব সুযোগ পেলেই? উম্ম? উমমম…হমম!”
-“আঃ! উমমম!” সংযুক্তা অসহায়ভাবে কঁকিয়ে ওঠে নির্মম স্তনপীড়ন, কঠিন মন্থনসহ রতিকান্তের দেহভোগের উন্মাদনায়| কিন্তু শাস্তিতে অবিচল দুষ্টু, অবাধ্য বালিকার মতই সে তার তলার ঠোঁট কামড়ে আকর্ষনীয় ভাবে হেসে ওঁর কথায় প্রতিক্রিয়া জানায় সে, মন্থিত হতে হতে নিজের বাম পা টি তুলে পায়ের নখ দিয়ে সে রতিকান্তের নগ্ন লোমশ নিতম্বে আঁচর কাটতে কাটতে ওঁকে জিভ বার করে মুখ ভেংচে ওঠে| “হিহি আমাদের পাওয়া অতি সোজা নাকি!” সে উত্তপ্ত স্বরে বলে ওঠে| মন্থনের তালে তালে ওর গলা কাঁপে| “উহঃ… ” সংযুক্তার স্তনদুটি দুহাতে থেঁতলে চটকে দিতে দিতে গরগর করে ওঠেন রতিকান্ত “তাই নাকি? তা এখন? এখন কে বাঁচে? উমমম? কে বাঁচায় এ-দুটোকে? উম্মঃ..! দুষ্টু রূপসী পরী! চটকে চটকে সমস্ত রস বার করে নেব তোমার!”
-“আহ্হঃ! স্যার, ” সংযুক্তা অসহায়ভাবে কঁকিয়ে উঠে মুখ কাত করে একপাশে| এমন নৃশংস স্তনপীড়ন সহ্য করতে গিয়ে ঠোঁট কামড়ে ওঠে সে| কিন্তু তবুও দুষ্টামি করে সে ডান হাত উঠিয়ে রতিকান্তের গোঁফ ধরে জোরে টান মারে| ওঁর লোমশ নিতম্বে তার পায়ের নখ বসিয়ে দেয, নির্মমভাবে খাবলে ধরে|
-“আহ্হঃ! দুষ্টু কোথাকার!” যন্ত্রনায় গর্জে উঠে রতিকান্ত সংযুক্তার স্তনজোড়াকে নিষ্কৃতি দিয়ে ডান হাতে ওর নরম ফর্সা দুটি হাত ওর মাথার উপরে তুলে একসাথে চেপে ধরে ওর নরম শরীরটা বিছানার সাথে রগড়ে রগড়ে মন্থন করতে শুরু করেন জান্তব আক্রোশে|বাংলাচটিওয়ার্ল্ড.কম
-“আহম্ম” সংযুক্তা অসহায়ভাবে গুঙিয়ে ওঠে ওঁর নিচে দলিত-মথিত হতে হতে| দুটি হাত মাথার উপর আটকা পড়া অবস্থায় তার তরুণী দেহটি মুহুর্মুহু আছাড়ি পিছাড়ি খায় রতিকান্তের মৈথুন-আক্রোশে…
এহেন নিবিড় আশ্লেষ সহকারে সংযুক্তার দেহটি মন্থন করতে করতে আর কিছুক্ষণের মধ্যেই ঝলকে ঝলকে বীর্য ওর যোনির ভেতর নির্গত করেন রতিকান্ত ওর ঠোঁটে ঠোঁট চেপে ধরে| জীবনের অন্যতম দীর্ঘ কামক্ষরণ সমাপ্ত করে তিনি কিছুক্ষণ ওর উপর ধ্বসে পরে থাকেন মৃতের মতো|
-“উম্ম্হঃ:” কিছু বাদে সংযুক্তা গুমরিয়ে ওঠে ওঁর নিচে| ওর নরম শরীরটা নড়েচড়ে ওঠে তাঁর ভারী দেহের তলায়|
-“প্চ্ম্ম..” রতিকান্ত সংযুক্তার ঠোঁটে সুন্দর করে চুমু খান “সোনামনি, এবার বাড়ি যাও, কাল আবার আসবে| ওকে?”
-“উমমমম!” প্রতিবাদ করে সংযুক্তা এখনো তার যোনির মধ্যে প্রবিষ্ট ওঁর অর্ধশক্ত পুরুষাঙ্গটি নিয়ে| “স্যার, আপনি বলেছিলেন আমার একটা ব্যবস্থার কথা ভেবেছেন?”
-“ওহ, হ্যাঁ,.. উম্ম” তিনি সংযুক্তার কপাল থেকে চুল সরিয়ে ওর সুন্দর ঠোঁটদুটোয় আবার চুম্বন করে বলেন “তুমি আমার বাড়ি চলে এস না সোনামনি? রানীর হালে রাখবো তোমাকে? কোনো রেন্ট দিতে হবেনা?”
“তাই?” সংযুক্তার মুখ উজ্জ্বল হয়ে ওঠে, “আপনি সত্যিই আমাকে থাকতে দেবেন? indefinitely?”
“হমমম, সুন্দরী! অবশই দেব| তবে একটাই শর্ত”
-“কি?”
-“তোমাকে আমার খেলার পুতুল হয়ে যেতে হবে! যখন ইচ্ছা, যেভাবে ইচ্ছা আমি তোমায় নিয়ে খেলবো| কোনো বেগরবাই করা যাবে না!”
-“ইশশ, ” সংযুক্তা ঠোঁট কামড়িয়ে হাসে-” কি অসভ্য,” তারপর কি ভেবে হেসে রতিকান্তের ঠোঁটে চুমু খায় “উম্ম, থ্যাঙ্ক ইউ স্যার, কবে থেকে মুভ করবো?”
-“কালকেই চলে আসো আমার রূপসী পরি! ” নিজের আসন্ন সৌভাগ্যের কথা ভেবে সংযুক্তার যোনির মধ্যে রতিকান্তের লিঙ্গ আবার শত হয়ে উঠতে থাকে “উম্মমম ” তিনি ওর ঠোঁটে ঠোঁট রেখে নিজের শক্ত লিঙ্গের দ্বারা ওর যোনির মধ্যে জোরে মোচড় দেন|
-“আউচ!! উমমম” সংযুক্তা হেসে ওঁর গলা দুবাহু দিয়ে মালার মতো জড়িয়ে ধরে| ওঁর স্থুল কোমরের উপর দুই পা তুলে দিয়ে পুনরায় ওঁকে তাকে মন্থন করতে সাহায্য করে|…